অন্যান্য

দি রির্টান অব টাইটানিক [পর্ব-২]

আশা করি ভালো আছেন সবাই। গত পর্বে আলোচনা টাইটানিকের প্রস্তুতকারক কোম্পানি আরও খুটিনাটি কিছু বিষয় নিয়ে। এই পর্বে আলোচনা করব টাইটানিকের অসাধারন নির্মাণ শৈলী নিয়ে। প্রথমে একটা সংক্ষিপ্ত বর্ননা দিয়ে শুরু করছি। এবং কথা দিচ্ছি এই সিরিজে আপনি সব কিছু বিস্তারিত পাবেন। একই ভাবে টাইটানিকের গঠনশৈলীর সবগুলোরই বিস্তারিত পাবেন ধাপে ধাপে, বিভিন্ন পর্বে।

দি রির্টান অব টাইটানিক [পর্ব-২]

আশা করি ভালো আছেন সবাই। গত পর্বে আলোচনা টাইটানিকের প্রস্তুতকারক কোম্পানি আরও খুটিনাটি কিছু বিষয় নিয়ে। এই পর্বে আলোচনা করব টাইটানিকের অসাধারন নির্মাণ শৈলী নিয়ে। প্রথমে একটা সংক্ষিপ্ত বর্ননা দিয়ে শুরু করছি। এবং কথা দিচ্ছি এই সিরিজে আপনি সব কিছু বিস্তারিত পাবেন। একই ভাবে টাইটানিকের গঠনশৈলীর সবগুলোরই বিস্তারিত পাবেন ধাপে ধাপে, বিভিন্ন পর্বে।

টাইটানিকের গঠনশৈলীর সংক্ষিপ্ত পরিসংখ্যান:

  • দৈর্ঘ্য ছিল ৮৮২ ফুট ৬ ইঞ্চি
  • পুরো জাহাজটি ভিত্তিস্থাপক বিমের (Beam) মোট দৈর্ঘ্য ছিল ৯২ ফুট ৬ ইঞ্চি (বীম হচ্ছে বাড়ি তৈরীর সময় আমরা দেস, ফাউন্ডেশন বা পিলার দেখি যা বাড়ির ভিত্তি প্রদান করে সে রকম একটা জিনিস। বীম জাহাজের মূল কাঠামোর প্রাণের মত।
  • সমুদ্রের পানির পৃষ্ঠ থেকে এর সর্বমোট উচ্চতা ছিল ১৭৫ ফুট। এবং পানির নিচে ছিল আরো ৬০ ফুট
  • ওজন প্রায় ৮৬,৩২৮ টন

britdeckplanslarge

টাইটানিক নির্মাণাধীন অবস্থা

  • টাইটানিকের নিচের অংশের দুইপাশের বেসসমূহের জন্য ব্যবহৃত ৩ মিলিয়নের উপরে নিখাদ লোহার পাইপ

  • ২৯টি কয়লা ভিত্তি শক্তি উৎপাদক বয়লার ছিল এতে

  • ৬২ ফুট এবং ২২ফুট চওড়া ৩টি ষ্টাক (Stack) ছিল বয়লারে উৎপন্ন ধোয়া নির্গমনের জন্য। (ষ্টাক হল জাহাজের উপরে আমরা যে তিনটি গোলাকার পাইপ দেখতে পাই, সেগুলো।)

  • নোঙরের সংখ্যা ছিল ২টি। প্রতিটির ওজন ছিল ১৫ টন !

  • যাত্রীসংখ্যা: (সর্বোচ্চ ধারনক্ষমতা)

ফার্ষ্ট ক্লাস(First Class): ৭৩৯ জন

সেকেন্ড ক্লাস(Second Class): ৬৭৪ জন

থার্ড ক্লাস (Third Class): ১০২৬ জন :fat:

  • উপস্থিত যাত্রীসংখ্যা: (এপ্রিল ১৪, ১৯১২)

ফার্ষ্ট ক্লাস: ৩২৯ জন

সেকেন্ড ক্লাস: ২৮৫ জন

থার্ড ক্লাস: ৭১০ জন

  • লাইফবোট:

২টি ইমার্জেন্সি (ধারনক্ষমতা ৮০ জন)

১৪টি কাঠের তৈরী (ধারনক্ষমতা ৬৫ জন)

৪টি এন্জ্ঞেলহার্ড কলাপসিবল (ধারনক্ষমতা ৪৯ জন)

  • টাইটানিক তৈরী করতে সর্বমোট খরচ হয়েছিল ৭.৫ মিলিয়ন ইউ.এস. ডলার (তৎকালীন সময়ে অর্থাৎ ১৯১২ সালে।) যা বর্তমানে ৮০০ মিলিয়ন ইউ.এস. ডলার

বোঝই যাচ্ছে বিশালতার সবসীমা ছাড়িয়ে গিয়েছিল টাইটানিক। এতক্ষন লিখছিলাম টাইটানিক গঠনশৈলীর সংক্ষিপ্ত একটি পরিচয়। ধাপে ধাপে বিস্তারিতভাবে সবই লিখব। আজ এ পর্যন্ত থাক। আগামী পর্বের জন্য আমন্ত্রন রইল, যাতে থাকবে এর অভ্যন্তরীন বিলাসবহুলতার পরিসংখ্যান ও চিত্র।

About Author

🎉 Salman Hossain Saif (internet username: Saif71).
Lead UX Engineer @ManagingLife LLC. Specialized in design systems, user flow, UX writing, and a certified accessibility specialist. Loves travel and creating meaningful content. Say hi @imsaif71